সরকারের বিভিন্ন মেয়াদে (২০০৮-০৯ হতে ২০১৪-১৫) গৃহীত সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচিসমূহ এবং এসবের ফলাফলের সময়ভিত্তিক তুলনামূলক পরিসংখ্যান

আমাদের সংবিধানে দরিদ্র ও অসহায় জনগোষ্ঠীকে সমাজের আর্থসামাজিক মূলধারায় ফিরিয়ে আনার জন্য সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমকে রাষ্ট্রের মৌলিক দায়িত্বের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বর্তমান সরকার এ লক্ষ্যে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০১০-২১ তথা রূপকল্প ২০২১-এ এবিষয়ে সুস্পষ্ট প্রতিফলন ও পথনির্দেশ আছে। গত দুই দশকের দারিদ্র্য বিমোচনের হারও ত্বরান্বিত হয়েছে। ২০০৫-০৯ মেয়াদে যেখানে দারিদ্য বিমোচনের হার ছিল গড়ে ১.৭%, ২০১০-১৪ মেয়াদে তা ছিল গড়ে ১.৮% ।

বর্তমান সরকারের ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে ২০১৪-১৫ অর্থবছর পর্যন্ত মেয়াদে এ খাতে প্রতি অর্থবছরে গড়ে ২২ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করেছে। যা গড়ে বাজেটের ১৩.৮৩% এবং জিডিপির প্রায় ২.৩২% । এর ফলে প্রকল্প/কর্মসূচীরও বিস্তার ঘটেছে, উপকারভোগীর সংখ্যা ও সহায়তার খাত/প্রকৃতি ও পরিমাণও বেড়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে যেখানে উপকারভোগীর সংখ্যা ছিল ৬৯৭.৭৯ লক্ষ জন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৭০.৬৫ লক্ষ জনে।

সাজাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের বিস্তার এবং তা সফল ও কার্যকরী বাস্তবায়নের ফলে বিভিন্ন আর্থ সামাজিক সূচকেও উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায় ২০০৬-১৪ মেয়াদে বৈশ্বিক গড় বৈষম্য সূচক (Gini Index) ৩৯.৯৪। সেখানে বাংলাদেশের গড় বৈষম্য সূচক ছিল ৩২.১২, যা আমাদের অনেক প্রতিবেশী ও তুলনীয় দেশের তুলনায় ইতিবাচক।

এ সকল ইতিবাচক ফলাফল সত্ত্বেও সরকার আরো ফলপ্রসূভাবে অধিকতর সেবা প্রদানের লক্ষ্যে সচেতনভাবে উন্নয়নমূলক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এ লক্ষ্যে ২০১৫ সালে সমন্বিত, সার্বজনীন ও জীবনব্যাপী প্ৰয়োজনানুগ সেবা প্রদানের লক্ষ্যে National Social Security Strategy of Bangladesh প্রণয়ন করা হয়। এই Strategy'র আলোকে সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমকে সুসংহত ও সমন্বিত তথা এর সংশ্লিষ্ট সেবা প্রদান পদ্ধতিকে দক্ষ, সাশ্রয়ী ও সহজ করার প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। এর সফল বাস্তবায়ন আমাদের রূপকল্প ২০২১ তথা SDG অর্জনে সাহায্য করবে।

Click on the image to view the document